খলিফা হত্যাকাণ্ড: ইসলামের রক্তাক্ত ইতিহাস


পারভেজ সেলিম

পারভেজ সেলিম


হয়রত আবু বকর,‌ হয়রত উমর, হয়রত উসমান ও হয়রত আলী। এই চারজনকে বলা হয় খুলাফায়ে রাশেদিন। তারাই হচ্ছেন খলিফাদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ। হয়রত  মুহাম্মাদের (সা.) মৃত্যুর পর ২৯ বছর ইসলামি রাষ্ট্রের ক্ষমতায় ছিলেন এই খলিফারা। শেষ নবী যেহেতু কাউকে মনোনিত করে যাননি এবং কিভাবে খলিফা নির্ধারিত হবেন তারও কোন সমাধান দিয়ে যাননি তাই বারবার ইসলামের উত্তরসুরি নির্ধারণে জটিলতা তৈরি হয়েছে।

সেই জটিলতার সমাধান হয়েছে রক্তাত্ব অধ্যায়ের মধ্যে দিয়ে। চার খলিফার মধ্যে তিন জনকেই হত্যা করা হয়েছে। তৃতীয় খলিফা উসমানের হত্যাকান্ড এতটাই নৃশংস ছিল যে তার মৃত্যুর পর মুসলমানরা দ্বিধা বিভক্ত হয়ে পড়ে। শুরু হয় নিজেদের মধ্যেই যুদ্ধ। যাতে নিহত হয় ৯০ হাজার মুসলমান। চতুর্থ খলিফাকে হয়রত আলীকেও হত্যা করে খাওয়ারিজ গোত্রের মুসলমানেরা। 

কিন্তু কেন, কারা, কিভাবে হত্যা করলো খলিফাদের? আর ইসলামের শুরুতেই কেন এমন নৃশংস আর রক্তাক্ত হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হলো?


আবু বকর : (৬৩২-৬৩৪ খ্রি.)


চারজন খলিফার  মধ্যে সবচেয়ে প্রবীন ছিলেন হজরত আবু বকর সিদ্দিক। সম্পর্কে মহানবীর শ্বশুর ছিলেন তিনি। তার  মেয়ে হয়রত আয়শা ছিলেন শেষ নবীর প্রিয় স্ত্রী। মহানবীর মৃত্যু পর মুসলমানদের মধ্যে বিভেদ তৈরি হয়েছিল কে হবেন প্রথম খলিফা। অনেক তর্ক বির্তক শেষে ৮ জুন, ৬৩২ খ্রি. মদিনার বনু সায়েদা গোত্রের চত্বরে প্রথম খলিফা নির্ধারিত হন হয়রত আবু বকর সিদ্দিক

তিনি মাত্র দুই বছর তিন মাস ক্ষমতায় ছিলেন। মহানবীর মৃত্যুর পর ইসলাম ত্যাগের যে হিড়িক পড়েছিল তা নিয়ন্ত্রণ করতেই পুরো সময়টাই পার করেছেন খলিফা আবু বকর। ইতিহাসে যা ‘রিদ্দার যুদ্ধ’ নামে পরিচতি।

৬৩৪ খ্রি. ২৩ শে আগস্ট অসুস্থ হয়ে মারা যান খুলাফায়ে রাশেদিনের প্রথম খলিফা হয়রত আবু বকর। তখন তার বয়স ৬০ বছর। চার খলিফার মধ্যে তিনি একমাত্র খলিফা যার স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছিল। মারা যাবার আগে উমর ইবনে খাত্তাব কে তিনি খলিফা মনোনিত করে যান।


উমর : (৬৩৪-৬৪৪ খ্রি.)


উমর ইবনে খাত্তাব হলেন ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা এবং একমাত্র খলিফা যার ক্ষমতা গ্রহণ পূর্ব নির্ধারিত ছিল। ফলে এই ক্ষমতা হস্তান্তরে বিরোধিতাও কম হয়েছে। 

খলিফা উমরের আমলেই ইসলামী রাস্ট্র সবচেয়ে বেশি বিস্তার লাভ করেছে। আরবের সকল গোত্রকে নিয়ন্ত্রণের পর পারস্য এবং বাজেন্টাইন সম্রাজ্যও দখলে চলে এসেছিল ইসলামের। খলিফা উমর ১০ বছর ৬ মাস ৮ দিন ক্ষমতায় থাকার পর এক ক্রীতদাসের ছুরির আঘাতে নিহত  হন।

কুফা প্রদেশের শাসনকর্তা মুগীরার ভৃত্য বা দাস ছিল আবু লুলু ফিরোজ। হরমুজান ও জাফিনাহ নামের মদিনার দুজন যুদ্ধ বন্দির সহায়তায় তিনি উমর হত্যার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেন। মসজিদে ফজরের নামাজ পড়ার সময় উমরকে খুন করেন আবুলুলু ফিরোজ।

আরেকটি মতে আবুলুলুকে প্রতিদিন দুই দিরহাম করে মুক্তিপণ দিতে হত তার মুনিবকে । এই মুক্তিপণ কমানোর জন্য তিনি উমরের কাছে গিয়েছিলেন কিন্তু উমর রাজি হননি। বলেছিলেন মুক্তিপণের পরিমান ঠিক আছে। এতে লুলু ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং তাকে হত্যা করার হুমকি দেন।

পরেরদিন সকালে লুলু ফজরের নামাজ শুরু করেন খলিফার সাথেই। নামাজের একামতের পর যখন তাকবির দেন তখন কাতার ভেঙ্গে লুলু সামনে এগিয়ে আসে। হাতে তার দু ধারী খঞ্জর। এসেই দ্রুত একে এক ছয়টি কোপ দেয় উমরের শরীরে।একটি কোপ দেয় নাভীর নিজে। এই আঘাতেই উমর মারা যান। উমরকে বাঁচাতে এসেছিলেন কাবিল বিন উবাই নামের একজন মুসল্লি । তিনিও ছুরির আঘাতে নিহত হন। পরের দিন বাড়িতে মারা যান ইসলামের সবচেয়ে প্রভাবশালী খলিফা হয়রত উমর।

ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হত্যাকান্ড রাজনৈতিক নাকি ব্যক্তিগত আক্রোশ তা নিয়ে দ্বিমত রয়েছে।উমরের মুত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। 


আরো পড়ুন : বখতিয়ার খলজি: বাংলার প্রথম মুসলিম শাসক


উসমান (৬৪৪-৬৫৬ খ্রি.)


বিশেষ এক নির্বাচনের মাধ্যমে ইসলামের তৃতীয় খলিফা নির্ধারিত হন উসমান ইবনে আফফান। হয়রত উসমান ছিল শান্ত শিষ্ট নরম প্রকৃতির মানুষ। তিনি খলিফাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় ছিলেন। তার ১২ বছরের শাসনামলের শেষ দিকে বিদ্রোহ দানা বাধতে শুরু করে। শেষ পর্যন্ত এই বিদ্রোহ ভয়াবহ মর্মান্তিক ঘটনা মধ্যে দিয়ে শেষ হয়।৮০ বছর বয়সি  উসমানকে হত্যা করা হয় নির্মমভাবে।

হত্যার পর বিদ্রোহীরা তার লাশের সাথে যে নির্মম ব্যবহার করে তা ইসলামের ইতিহাসের সবচেয়ে বর্বরোচিত ঘটনা বলে মনে করা হয়। কারো কারো মতে কারবালার চাইতেও বেশি নিমর্মতা দেখানো হয়েছিল তৃতীয় খলিফার হত্যাকান্ডে।

উসমান হত্যাকান্ড :

৪০ দিন অবোরোধ রাখার পর খলিফার বাড়ির দরজায় আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল বিদ্রোহীরা। বাড়ির তিনজন নিরাপত্তা রক্ষি নিহত হয়েছিল বিদ্রোহীদের পাথরের আঘাতে। বিদ্রোহীরা শেষ দিকে খলিফার পানি সরবরাহ পর্যন্ত দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছিল।

খলিফা আবু বকরের ছেলে মুহাম্মাদ তিনজন বিদ্রোহীকে নিয়ে  খলিফা উসমানের বাড়িতে প্রথম প্রবেশ করেন । তখন কোরআন পড়ছিলেন বৃদ্ধ খলিফা। ঘরে ঢুকেই মুহাম্মাদ উসমানের দাঁড়ি ধরে টান দেন এবং গালিগালাজ করতে থাকেন।খলিফা মুহাম্মাদকে স্মরণ করিয়ে দেন যে তার বাবা ইসলামের প্রথম খলিফা আবু বকর এই কাজ দেখলে কতটা মর্মাহত হতেন। এতে মুহাম্মদ নিজের ভুল বুঝতে পেরে পিছু হটে যান। 

তখন অন্য বিদ্রোহীরা খলিফার মাথায় তিনটা আঘাত করেন এবং সাথে সাথেই  রক্ত গলগল করে বেয়ে পড়তে থাকে সামনে রাখা কোরআনের পাতায়। এরপর তলোয়ার দিয়ে খলিফাকে কোপ দেয় বিদ্রোহীরা, খলিফা হাত দিয়ে ঠেকাতে গেলে তার হাত কেটে যায়। এসময় উসমান বিদ্রোহীদের বলে ‘এইমাত্র তুমি যে হাতটিকে কেটে ফেললে সেই হাত দিয়েই প্রথম কুরআন লিখা হয়েছিল’।

স্ত্রী নাইলা খলিফাকে বাঁচতে এলে তলোয়ারের আঘাতে তার হাতের আঙ্গুলও কেটে যায়। খলিফা তরবারির আঘাতে মাঠিতে যখন লুটিয়ে পড়েন তখন এক বিদ্রোহী তার বুকের উপর দাঁড়িয়ে নয় বার বর্শা ঢুকিয়ে খলিফা উসমানের মৃত্যু নিশ্চিত করে।

যাবার সময় তার বাড়ি লুট করা হয়। এমনকি তার শরীরের কাপড় পর্যন্ত খুলে নিয়ে যায় বিদ্রোহীরা। তবু  বিদ্রোহীদের ক্ষোভ মিটেনি। উসমানকে তিন দিন দাফন না করে আবর্জনার ভাগাড়ে ফেলে রাখা হয়।

অবশেষে মহানবী পত্নী উম্মে হাবিবা মসজিদে নববীতে দাঁড়িয়ে ঘোষনা দেন ‘ যদি উসমানকে সমাহিত করতে না দেওয়া হয় তাহলে তিনি মাথার চুল উন্মুক্ত করে মদিনার রাস্তায় নেমে পড়বেন’। তার এই ঘোষণায় খুব দ্রুত কাজ হয়। বিদ্রোহীরা কিছুটা নমনীয় হন।

আনসারেরা কেউ জানায়া পড়াতে রাজি হননি প্রথমে। পরে উমাইয়া বিন আবি জাবি তার জানায়া পড়ান। তাকে জান্নাতুল বাকিতে দাফন করা হয়। কারো মতে হয়রত আলীর  পরামর্শে গোপনে তাকে দাফন করা হয়।

হযরত উসমান হত্যাকান্ডের সময়  হযরত আলী মদিনাতেই ছিলেন না। নিরপেক্ষতার কথা বলে বাকি সাহাবীরাও ঘরের দরজা বন্ধ করে ছিলেন। অনেকে মনে করেন প্রভাবশালী সাহাবীরা নিরপেক্ষ থাকার কথা বলে দুরে থাকায় বিদ্রোহীরা খলিফাকে হত্যা করার সাহস পেয়েছিল।

কেন এত ক্ষোভ ছিল বিদ্রোহীদের ?

প্রশাসনিক দূর্বলতা ছিল উসমানের সবচেয়ে বড় দূর্বলতা। এছাড়া বিভিন্ন প্রদেশে নিজের পরিরারে সদস্যদের বড় বড় পদে বসিয়েছিলেন তিনি। স্বজনপ্রীতির অভিযোগে প্রধানত তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ দানা বাঁধতে শুরু করে ।

এই হত্যাকান্ডের পিছনে আরেকটি ঘটনা নিয়ামক হিসেবে কাজ করে । মুহাম্মদ ইবনে আবু বকরকে মিশরের গভর্নর হিসেবে নিযুক্ত করে পাঠান খলফা উসমান । কিন্তু পথে তারা জানতে পারেন মিশরে পৌঁছামাত্রই মুহাম্মদকে হত্যার আদেশ দিয়ে মিসরের বর্তমান গর্ভনরের কাছে গোপনে চিঠি পাঠিয়েছ খলিফা উসমান ।

এই গোপন চিঠি মুহাম্মাদের হাতে পড়ার পর তারা ক্রোধে উন্মাতাল হয়ে উসমানের কাছে মদিনায় ফিরে আসেন। খলিফা উসমান অস্বীকার করেন এই চিঠির কথা। পরে জানা যায়  উসমানের চাচাতো ভাই গোপনে এই চিঠি লিখে উসমানের সীল লাগিয়ে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন।

মুহাম্মদ ও তার বিদ্রোহী গ্রুপ মারওয়ানকে তাদের হাতে তুলে দিতে বলেন। উসমান রাজি না হওয়ায় তারা উসমানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু করে। পরে এই বিদ্রোহীরাই হত্যা করে ইসলামের তৃতীয় খলিফাকে।

মুয়াবিয়া সেসময় দামেস্কের শক্তিশালী প্রশাসক ছিলেন। চাইলে তিনি খলিফাকে রক্ষা করতে পারতেন। তিনিও স্বপ্ন দেখছিলেন উসমানের মৃত্যুর পর ইসলামের খলিফা হবেন। তাই ৪০ দিন অবরোধ থাকার পরও কোন প্রদেশ থেকে তাকে রক্ষার জন্য এগিয়ে আসেনি কোন গর্ভনর ।

হয়রত উসমানকে নৃসংসভাবে খুন করার পর মুসলমানদের মধ্যে যে গৃহযুদ্ধ বাধে তাতে ৯০ হাজার মুসলমান মারা যান। এটাই ছিল মুসলমানদের নিজেদের মধ্যে সবচেয়ে বড় নৃশংসতার ঘটনা। ইসলামের যা ‘প্রথম ফিতনা’ নামে পরিচিত ।


আরো পড়ুন : দেশভাগ : বাঙ্গালীর এক নীল বেদনার অধ্যায় !!


আলী ( ৬৫৬-৬৬১ খ্রি.)


ইসলামের তৃতীয় খলিফা হয়রত উসমানের মৃত্যু পর আবারো এক ভয়াবহ সংকটে পড়ে ইসলাম। দ্বিধা বিভক্ত হয়ে পড়ে মুসলমানেরা। নিজেদের মধ্য যুদ্ধে নিহত হন ৯০ হাজার মুসলমান। ইসলামের এমন এক ভয়াবহ সংকটকালে তৃতীয় খলীফার মৃত্যু পাঁচদিন পর মুসলিম উম্মাহর প্রধান হন আলী ইবনে আবু তালিব।

কিন্তু বেশিদিন স্থায়ী হয়না চতুর্থ খলিফার মেয়াদকাল।মাত্র ৪ বছর ৯ মাস ক্ষমতায় থাকার পর ইরাকের কুফায় ‘ইবনে মুলজাম’ নামে এক খাওয়ারিজের হাতে খুন হন খুলাফায়ে রাশেদীনের শেষ খলিফা হয়রত আলী। তখন তার বয়স হয়েছিল ৬০ বছর।

আলী খলিফা হবার পর : 

খলিফা হবার পর হয়রত আলীর উপর সবচেয়ে বেশি চাপ আসতে থাকে দ্রুত উসমান হত্যার বিচার করার জন্য। কিন্তু সেই সময়ের উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে এই বিচার করাটা বড় জটিল ও অসম্ভব হয়ে পড়ে। 

এর প্রেক্ষিতেই বিরোধীরা এবার ‌উসমান হত্যার সাথে খলিফা আলীর জড়িত থাকার অভিযোগ  আনতে থাকেন। হয়রত আলী এমন গুরুতর অভিযোগকে সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেন। 

কিন্তু পরিস্থিতি ধীরে ধীরে এত খারাপ হয় যে শেষ নবীর স্ত্রী হয়রত আয়শা (রা.) তার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। নিজেই উটে পিঠে চড়ে যুদ্ধের ময়দানে আসেন এবং যুদ্ধের নেতৃত্ব দেন। এই যুদ্ধ ‘বসরার যুদ্ধ’ বা ‘জংগে জামাল’ বা ‘উটের যুদ্ধ’ নামে ইতিহাসে পরিচিত। হয়রত আলী এই যুদ্ধে জয় লাভ করলে বিবি আয়শাকে তিনি স্বসম্মানে মক্কায় পাঠিয়ে দেন।

বিবি আয়শার মতো উসমান হত্যার বিচারের সবচেয়ে বড় দাবিদার ছিলেন মুয়াবিয়া ও আমর ইবনে আস। বসরার  যুদ্ধে হয়রত আলী জয়ের পর, সিরিয়ার গর্ভনর মুয়াবিয়া, আলীর খেলাফতকেই অস্বীকার করে বসেন। শুরু হয় আলী- মুয়ারিয়ার নতুন যুদ্ধ ।‘সিফফিনের যুদ্ধ’। 

মুয়াবিয়ার শঠতার কারণে বাধ্য হয়ে হযরত আলী এই যুদ্ধে বিরতি দেন এবং আলোচনায় বসেন মুয়াবিয়ার সাথে। আলোচনায় বসায় এবার নতুন জটিলতা তৈরি হয় মুসলমানদের মধ্যে। খাওয়ারিজ মুসলামানেরা বিদ্রোহ করে বসেন। তারা মনে করেন  মুয়াবিয়ার সাথে যুদ্ধ বন্ধ করে খলিফা আলি কাফের হয়ে গেছেন। তাকে আগে তওবা করতে হবে তারপর অন্যকিছু। হয়রত আলী তাদের বোঝাতে ব্যর্থ হন যে, তিনি ভুল করেননি তিনি বাধ্য হয়েছিলেন এই আলোচনায় বসতে।

খাওয়ারিজদের বিদ্রোহ :

পরিস্থিতি এত খারাপ হয় যে মুয়াবিয়ার সাথে আবারো যুদ্ধ শুরুর আগে খাওয়ারিজদের বিরুদ্ধেই যুদ্ধ শুরু করেন খলিফা আলী। ইতিহাসে সেই যুদ্ধ  ‘নাহরাওয়ানের যুদ্ধ’ নামে পরিচিত। অংশ নেয়া নয় হাজার খাওয়ারিজের প্রায় সকলেই নিহত হয়েছিলেন এই যুদ্ধে। বেঁচে থাকেন মাত্র নয়জন খাওয়ারিজ। তারাই পরে কাবা ঘরে এসে এক চরম আত্নঘাতি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।যা ইসলামের গতিপথকে আবারো বদলিয়ে দিয়েছিল।

খাওয়ারিজরা মনে করেন মুসলমানদের মধ্যে এই গৃহযুদ্ধের জন্য তিনজন ব্যক্তি দায়ী। আর তারা হলেন হয়রত আলী, মুয়াবিয়া আর আমর ইবনে আস। তারা নিজেদের বিবাদই  মুসলমানদের মধ্যে যুদ্ধ বাঁধিয়ে রেখেছে। তাদেরকে একসঙ্গে হত্যা করতে পারলে ইসলামে শান্তি ফিরে আসবে বলে তারা বিশ্বাস করেন।  

আর তাই নিজেদের জীবনের বিনিময়ে হলেও এই তিনজনকেই একসাথে হত্যার শপথ নেন যুদ্ধে বেঁচে যাওয়া খাওয়ারিজরা। তিনজন খাওয়ারিজ প্রস্তুত হন আত্নহুতি দিতে। এরা হলেন বারেক ইবনে আব্দুলাহ, আমর ইবনে বকর ও আব্দুর রহমান ইবনে মুলজাম। হত্যার সময় নির্ধারণ করেন ১৬ রমজান শুক্রবার।

 

পরিকল্পনা অনুযায়ি দামেস্কের মসজিদে মুয়াবিয়াকে হত্যা করতে বের হন বারক ইবনে আব্দুল্লাহ। আঘাত করেন কিন্তু মুয়াবিয়া প্রাণে বেঁচে যান। অন্যদিকে আমর ইবনে আস নামাজ পড়তে না আসায় তাকে হত্যা করতে ব্যর্থ হন। আমর ভেবে অন্য এক মুসল্লিকে খুন করেন খাওয়ারিজ আত্নঘাতি আমর ইবনে বকর। দুই হত্যার প্রচেষ্টা সফল না হলেও সফল হয় হয়রত আলির হত্যার চেষ্টা ।

আলী হত্যাকান্ড :

শুক্রবার কুফার মসজিদে ফজরের নামাজ আদায়ে আসেন খলিফা হয়রত আলী। খলিফা ঠিক যে সময়  সিজদা দিচ্ছিলেন ঠিক তখন বিষ মাখা ছুরি দিয়ে মাথায় আঘাত করে আবদুর রহমান ইবনে মুলজাম। তারপর দ্রুত পালিয়ে যান সেখান থেকে।

ছুরির আঘাতেই রক্তাত্ব ও নিস্তেজ হয়ে পড়ে খলিফার শরীর। মসজিদ থেকে তাকে বাসায় নেয়া হয়। হামলার দুই দিন পর ২৯ জানুয়ারি, ৬৬১ সালে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন খুলাফায়ে রাশেদীনের শেষ খলিফা হয়রত আলী ইবনে আবু তালিব।

 

 

তবে কারো কারো মতে মুয়াবিয়াই এই হত্যাকান্ডের পরিকল্পনাকারী। তার নির্দেশেই হযরত আলীকে হত্যা করা হয়েছিল। যদিও তার কোন প্রমাণ পাওয়া যায় না। খলিফার নির্দেশনা অনুযায়ী পরবর্তীতে ইবনে মুলজামকে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়েছিল। 

মৃত্যুর আগে হয়রত আলী তার বড় ছেলে ইমাম হাসানকে পরবর্তী খলিফা নির্বাচিত করে যান। কিন্তু ছয় মাসের মাথায় আবারো মুয়াবিয়ার সাথে চুক্তি করে খেলাফত হস্তান্তরে বাধ্য হন ইমাম হাসান।ইসলামের নুতন নেতা হন মুয়াবিয়া ইবনে আবু সুফিয়ান। ইসলাম এক গভীর সংকটের দিকে অগ্রসর হতে থাকে।

আর এভাবেই শেষ হয়ে যায় ইসলামের স্বর্নযুগ নামে খ্যাত ২৯ বছরের ‘খুলাফায়ে রাশিদুনের যুগ’ ! 


পারভেজ সেলিম
লেখক ও চলচ্চিত্রকর্মী

আরো পড়ুন : কারবালা : বেদনার এক ইতিহাস (পুরো পর্ব)


ভিডিও সৌজন্য : Banglabox

৩,৯৩৬ thoughts on “খলিফা হত্যাকাণ্ড: ইসলামের রক্তাক্ত ইতিহাস

  1. Метод системных семейных расстановок.
    Семейное консультирование и психотерапия Расстановки по Хеллингеру.

    Расстановки. Расстановки. Новые семейные расстановки.
    Новые семейные расстановки.

  2. Здесь восемнадцать новых сериалов для поклонников дедективов.
    Бумажный дом 5 сезон 7 серия смотреть онлайн сериал, смотреть онлайн, все серии подряд.
    Закачивайте по намеченой дате выхода, Сериалы жанра “Спорт”.

    Точно также все мы дает библиографию каналов НТВ,
    HD Eurosport 1, 4K Дом кино, прямой
    эфир Мега, трансляция СТС Love.

  3. An impressive share, I just given this onto a colleague who was doing just a little analysis on this. And he in reality purchased me breakfast as a result of I discovered it for him.. smile. So let me reword that: Thnx for the treat! But yeah Thnkx for spending the time to debate this, I feel strongly about it and love reading more on this topic. If possible, as you change into expertise, would you thoughts updating your weblog with more details? It’s highly helpful for me. Massive thumb up for this weblog post!

  4. Hey! I know this is kind of off-topic but I had to ask.
    Does managing a well-established website like yours take a lot of work?

    I am completely new to operating a blog however I do write in my
    journal every day. I’d like to start a blog so I
    will be able to share my experience and thoughts online.
    Please let me know if you have any kind of suggestions or tips for new
    aspiring blog owners. Appreciate it!

  5. Wonderful goods from you, man. I’ve consider your stuff prior to
    and you’re simply too great. I really like what you
    have obtained here, certainly like what you’re saying and the way in which wherein you are saying
    it. You’re making it enjoyable and you still care for to stay it sensible.
    I cant wait to read much more from you. That is really a great web site.

  6. Definitely believe that which you said. Your favorite reason seemed to
    be on the net the easiest thing to be aware of.
    I say to you, I certainly get irked while people think about worries that they just don’t
    know about. You managed to hit the nail upon the top and defined out the whole thing without having side effect ,
    people can take a signal. Will likely be back to get more.
    Thanks

  7. Hi there, I discovered your site by way of Google even as
    looking for a similar topic, your website got here up, it seems to be great.
    I’ve bookmarked it in my google bookmarks.
    Hello there, just was aware of your weblog thru Google, and located that it is truly informative.
    I am going to watch out for brussels. I will appreciate should you proceed
    this in future. A lot of other folks will likely be benefited
    from your writing. Cheers!

  8. Hey! I realize this is sort of off-topic but I had
    to ask. Does running a well-established blog like yours take a massive amount work?
    I am brand new to running a blog however I do write in my diary
    every day. I’d like to start a blog so I will be able to
    share my experience and feelings online. Please let me know if you have any recommendations or tips for brand new aspiring bloggers.

    Thankyou!

  9. I have been exploring for a bit for any high quality articles or blog posts in this sort of house .
    Exploring in Yahoo I finally stumbled upon this site.
    Reading this info So i’m satisfied to express
    that I’ve a very just right uncanny feeling I came upon just
    what I needed. I such a lot indisputably will make sure
    to do not disregard this web site and provides it a look
    on a constant basis.

  10. My programmer is trying to convince me to move to
    .net from PHP. I have always disliked the idea because of the expenses.
    But he’s tryiong none the less. I’ve been using WordPress on a number
    of websites for about a year and am worried about switching to another platform.
    I have heard good things about blogengine.net. Is there a way I
    can import all my wordpress posts into it? Any help
    would be really appreciated!

  11. Woah! I’m really enjoying the template/theme of this site.
    It’s simple, yet effective. A lot of times it’s very hard to get that “perfect balance” between superb usability and visual appearance.
    I must say that you’ve done a awesome job with this. In addition, the blog loads super fast for me on Opera.
    Superb Blog!

  12. Magnificent goods from you, man. I’ve understand your stuff previous to and you’re just too great.

    I actually like what you’ve acquired here, really like what you are saying and the way in which you say it.
    You make it enjoyable and you still care for to keep it wise.
    I can’t wait to read far more from you. This is really a wonderful website.

  13. What i do not understood is in reality how you’re not
    really much more neatly-liked than you may be right now.
    You are very intelligent. You realize thus considerably in the case of
    this matter, made me for my part imagine it from numerous numerous
    angles. Its like women and men aren’t fascinated except it is something
    to accomplish with Woman gaga! Your own stuffs great.

    Always care for it up!

  14. Fantastic goods from you, man. I’ve consider your stuff prior to and you
    are simply too wonderful. I actually like what you have received right here,
    really like what you are stating and the best way in which you are saying it.
    You’re making it entertaining and you still care for
    to keep it smart. I cant wait to read much more from you. That
    is really a great website.

  15. With havin so much content do you ever run into any problems of plagorism
    or copyright infringement? My site has a lot of completely unique content
    I’ve either created myself or outsourced but it looks like a
    lot of it is popping it up all over the web without my agreement.
    Do you know any solutions to help protect against content
    from being stolen? I’d truly appreciate it.

  16. First of all I would like to say excellent blog! I had a quick
    question in which I’d like to ask if you don’t mind.
    I was interested to know how you center yourself and clear your mind prior to writing.
    I have had difficulty clearing my mind in getting my ideas out there.

    I do enjoy writing however it just seems like the first 10 to 15 minutes are usually
    lost simply just trying to figure out how to begin. Any
    ideas or hints? Appreciate it!

  17. Heya! I know this is sort of off-topic but I had
    to ask. Does running a well-established website such as yours
    take a large amount of work? I’m completely
    new to blogging but I do write in my journal every day.
    I’d like to start a blog so I can easily share my personal experience and views online.
    Please let me know if you have any recommendations or tips for brand new
    aspiring blog owners. Thankyou!

  18. What i do not realize is in truth how you are no longer actually much more smartly-preferred than you may be now.
    You’re very intelligent. You already know thus significantly in relation to
    this topic, produced me in my view consider it from numerous varied angles.
    Its like women and men aren’t fascinated except it is something to do with Girl gaga!
    Your individual stuffs great. All the time care for it up!

  19. Hello I am so excited I found your weblog, I really
    found you by mistake, while I was browsing on Google for
    something else, Regardless I am here now and would just like to say thanks for a
    remarkable post and a all round enjoyable blog (I also love the theme/design), I don’t have time to read through it all at the
    minute but I have saved it and also included your RSS feeds,
    so when I have time I will be back to read much more,
    Please do keep up the excellent job.

  20. My coder is trying to persuade me to move to .net from PHP.

    I have always disliked the idea because of
    the costs. But he’s tryiong none the less. I’ve been using WordPress on a number of
    websites for about a year and am worried about switching to another platform.
    I have heard excellent things about blogengine.net.
    Is there a way I can transfer all my wordpress posts
    into it? Any kind of help would be greatly appreciated!

  21. hey there and thank you for your info – I have
    certainly picked up anything new from right
    here. I did however expertise several technical issues using this site, since I experienced to reload
    the web site lots of times previous to I could get
    it to load correctly. I had been wondering if your web host is OK?
    Not that I’m complaining, but slow loading instances times will often affect your placement in google and could damage your high-quality score if ads and marketing with Adwords.
    Anyway I am adding this RSS to my e-mail and could look out for much more
    of your respective intriguing content. Make sure
    you update this again very soon.

  22. Greetings from Los angeles! I’m bored to death at work so I
    decided to browse your website on my iphone during lunch break.
    I love the knowledge you provide here and can’t wait to take a look when I get home.
    I’m amazed at how quick your blog loaded on my cell phone
    .. I’m not even using WIFI, just 3G .. Anyhow, very good site!

  23. I believe what you composed made a lot of sense. However, think on this, suppose you typed a catchier title?
    I mean, I don’t wish to tell you how to run your website, but what if you added a post title that grabbed folk’s
    attention? I mean খলিফা হত্যাকাণ্ড: ইসলামের রক্তাক্ত ইতিহাস – আলোর দেশে is kinda vanilla.
    You could peek at Yahoo’s home page and watch how they write article headlines
    to get people to click. You might try adding a video or a related pic
    or two to grab readers interested about what you’ve written. Just my
    opinion, it might make your website a little bit more interesting.

  24. hey there and thank you for your information – I’ve definitely picked up something new from
    right here. I did however expertise some technical points using this
    website, as I experienced to reload the web site a lot of times previous
    to I could get it to load properly. I had been wondering
    if your web host is OK? Not that I’m complaining, but slow loading instances times will very frequently affect your placement in google and could damage your high quality score
    if advertising and marketing with Adwords. Well I’m adding this RSS
    to my email and could look out for a lot more of
    your respective intriguing content. Ensure that you update this again very soon.

  25. Undeniably believe that which you said. Your favorite reason seemed to
    be on the net the easiest thing to be aware of.

    I say to you, I definitely get irked while people think about worries that they plainly do not know about.
    You managed to hit the nail upon the top and also defined out the whole thing without having side effect
    , people could take a signal. Will likely be back to get more.

    Thanks

  26. Excellent goods from you, man. I’ve consider your stuff prior to
    and you’re just extremely magnificent. I actually
    like what you’ve acquired right here, certainly like what you are stating
    and the way in which during which you assert it.
    You’re making it entertaining and you continue to take care of
    to keep it sensible. I cant wait to read far more from you.
    This is actually a tremendous web site.

  27. Hi there would you mind sharing which blog platform you’re using?
    I’m looking to start my own blog in the near future but I’m
    having a tough time selecting between BlogEngine/Wordpress/B2evolution and Drupal.
    The reason I ask is because your design and style seems
    different then most blogs and I’m looking for something unique.
    P.S Sorry for getting off-topic but I had to ask!