শ্রীলংকার সংকট: গৃহযুদ্ধ আর হিংসার উল্লাস

পারভেজ সেলিম
পারভেজ সেলিম ।

প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবসা বাণিজ্যে সমৃদ্ধি ছিল দ্বীপ রাষ্ট্রটি। ১৫০৫ সালে পর্তুগীজ এবং ১৭৯২ সালে ইংরেজদের দখলে চলে যায় শ্রীলংকা। ১৮১৫ সালে পুরোপুরি ব্রিটিশ শাসন চালু হয় দেশটিতে।

ব্রিটিশদের কাছ থেকে ১৯৪৮ সালে যখন স্বাধীনতা লাভ করে তখন দেশটির নাম ছিল সিলন।

১৯৭২ সালে সিলন থেকে শ্রীলংকা নাম ধারণ করে। সংবিধান পরিবর্তন হয়। প্রজাতন্ত্রে রুপ নেয় দেশটি। কিন্তু জাতীয়তাবাদের প্রশ্নটি অমীমাংসিত থেকে যায়।

শ্রীলংকা মুলত দুটি জাতিসত্ত্বায় বিভক্ত। সিংহলী ও তামিল। দুপক্ষই মনে করে তারাই শ্রীলংকার আদিবাসী এবং প্রকৃত অধিবাসী। বর্তমানে ২ কোটির ২০ লাখ মানুষের মধ্যে সিংহলী ৭০ শতাংশ এবং তামিল ১১ শতাংশ। ১৯৪৮ সালে তামিল জনগোষ্ঠি মোট জনসংখ্যার ২৫ শতাংশ।

তামিলরা সবসময় নিজেদের বঞ্চিত ভেবে এসেছে। নিজেদের স্বাধীন একটি ভুখন্ডের আশায় সশস্ত্র বাহিনী গঠন ১৯৭৩ সালে। লিবারেশন টাইগার্স অফ তামিলএলাম বা এলটিটিই নামের সংগঠনটি ধীরে ধীরে দেশের উত্তরাঞ্চলে তাদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে। ২২ বছর বয়সী তরুণ ভিলুপিল্লাই প্রভাকরণ আমৃত্যু নেতৃত্ব দেন এই সশস্ত্র সংগঠনটি।

LTTE নেতাদের ট্রেনিং সিরুমালাই ক্যাম্প, ভারত ১৯৮৪ (Wikimedia)

আত্নঘাতি হামলার জন্য দ্রুতই ভয়ংকর হয়ে ওঠে এলটিটিই। দেশে বিদেশে ভীষণ বাধার মুখে পড়ে তাদের নৃশংস হত্যাকান্ডের জন্য।

১৯৯৩ সালে প্রেসিডেন্ট রানাসিংহে প্রেমাদাসা গৃহযুদ্ধের বলি হন। এলটিটিইদের আত্নঘাতি হামলায় নিহত হন শ্রীলংকান প্রেসিডেন্ট। একই ভাবে ১৯৯১ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীকেও হত্যা করে তারা। সারা বিশ্বে নেতিবাচক ইমেজ তৈরি হইলেও তামিলদের মাঝে প্রভাকরণ ছিলো তামিলদের অবিসংবাদিত নেতা। তারা ভিলুপ্লিলাইকে ‘সুর্যদেবতা’ হিসেবে সম্মান করতো।

তামিলদের সাথে সরকারের অনেক কয়েকবার শান্তি আলোচনা শুরু হলেও তা ভেস্তে যায়। ফলে দীর্ঘমেয়াদি এক গৃহযুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে দেশটি।

ভিলুপিল্লাই প্রভাকরন: তামিলদের প্রধান নেতা

২০০৫ সালে ক্ষমতায় আসে মাহেন্দ্র রাজাপাকসে। সেনাবাহিনীর সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করার সিদ্ধান্ত নেয়। শুরু হয় এক রক্তাত্ব অপারেশন। ২০০৯ সালে ভিলুপ্লিল্লাই প্রভাকরণকে হত্যা করতে সমর্থ হয় শ্রীলংকান সেনাবাহিনী। সাথে ৪০ হাজার তালিম বিদ্রোহী ও সাধারণ মানুষকে হত্যা করে। সিংহলীদের বিজয় অর্জিত হয়, আর তামিলরা পরাজয় বরণ করে।

এসময়ে নৃশংস গণহত্যাকে অস্বীকার করে রাজাপাসের সরকার। ২৬ বছরের স্বাধীন ভুখন্ডের আন্দোলনের পরিসমাপ্তি ঘটে পরাজয়ের মধ্য দিয়ে। ডুবে যায় তামিলদের স্বাধীন দেশের স্বপ্ন। সিংহলীরা বিজয় অর্জন করে। শ্রীলংকার নিজেদের একক সিংহলী জাতীয়তাবাদের অধিকারী ভাবতে শুরু করে। মাহেন্দ্র রাজাপাকসেকে জাতীয় বীর হিসেবে আখ্যা দেয় সিংহলীরা। সিংহলী রাজার মতো সম্মান প্রদর্শণ শুরু করে প্রেসিডেন্টকে।

পরাজয়ের পর বাধ্য হয়ে তামিলরা দ্বিতীয় শ্রেনীর নাগরিকের মতো জীবন যাপন করতেন থাকেন নিজ দেশে। সকল ক্ষেত্রে তাদের অধিকার হারিয়ে যায়। দীর্ঘদিনের বঞ্চণা আর দীর্ঘতর হয়।

মাহেদ্র রাজাপাকসে : নায়ক থেকে খলনায়ক

তবে সিংহলীদের এই বিজয় উল্লাস বেশি দিন স্থায়ী হয়না। রক্তের দাগ শুকানোর আগেই মাত্র ৬ বছরের মাথায় নির্বাচনে পরাজিত হন মাহেন্দ্র রাজাপাকসে। দুর্নীতি আর কুশাসনের কারণে ২০১৫ সালের নির্বাচনে ভয়াবহ পরাজয় ঘটে তামিল নিধণের প্রধান কারিগরের।

তবে ২০১৯ সালে আবার ক্ষমতায় আসে রাজাপাকসের পরিবার। এবার ছোটভাই গোটাবায়া রাজাপাকসে হয় প্রেসিডেন্ট। মাহেন্দ্রকে আবার বানিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী। পুরো পরিবার মিলে শুরু করে সরকার চালানো।

প্রকৃতির কি অমোঘ নিয়ম, সেই নায়ক মাহেন্দ্রর শাসনকালেই শ্রীলংকা নগ্ন হয়ে পথে বসে গেল। একসময়ের নায়ক চোরের মতো পালিয়ে বাঁচলো কোনরকমে।

এখন সিংহলি আর তামিল একসাথে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করছে তার বিরুদ্ধে। বলছে শ্রীলংকা একক জাতিসত্তার নয়, বহু জাতিসত্ত্বার। এদেশে তামিল সিংহলী ভাই ভাই। যা কিছুদিন আগে কল্পনাও করা যেত না ।

(চলবে ….)

পারভেজ সেলিম

লেখক, সাংবাদিক ও চলচ্চিত্রকর্মী

আরো পড়ুন :

৪৪ thoughts on “শ্রীলংকার সংকট: গৃহযুদ্ধ আর হিংসার উল্লাস

  1. Pingback: dewasgp
  2. Pingback: unicc
  3. Pingback: pouches
  4. Pingback: Betkick
  5. Pingback: nagaqq gabung
  6. Pingback: apple runtz strain
  7. Pingback: slot online
  8. Pingback: super kaya88
  9. Pingback: Native Smokes
  10. Pingback: superkaya88
  11. Pingback: superkaya88
  12. Pingback: superkaya88
  13. Pingback: hizeed
  14. Pingback: website
  15. Pingback: slotjili
  16. Pingback: fake id card
  17. Pingback: เซียน24

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x