খলিফা উসমান হত্যাকান্ড ও মুসলমানের গৃহযুদ্ধ


পারভেজ সেলিম

পারভেজ সেলিম ।।


হয়রত আবু বকর,‌ হয়রত উমর, হয়রত উসমান ও হয়রত আলী। এই চারজনকে বলা হয় খুলাফায়ে রাশেদিন। তারাই হচ্ছেন খলিফাদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ। হয়রত  মুহাম্মাদের (সা.) মৃত্যুর পর ২৯ বছর ইসলামি রাষ্ট্রের ক্ষমতায় ছিলেন এই খলিফারা। শেষ নবী যেহেতু কাউকে মনোনিত করে যাননি এবং কিভাবে খলিফা নির্ধারিত হবেন তারও কোন সমাধান দিয়ে যাননি তাই বারবার ইসলামের উত্তরসুরি নির্ধারণে জটিলতা তৈরি হয়েছে।

সেই জটিলতার সমাধান হয়েছে রক্তাত্ব অধ্যায়ের মধ্যে দিয়ে। চার খলিফার মধ্যে তিন জনকেই হত্যা করা হয়েছে।

তৃতীয় খলিফা উসমানের হত্যাকান্ড এতটাই নৃশংস ছিল যে তার মৃত্যুর পর মুসলমানরা দ্বিধা বিভক্ত হয়ে পড়ে। শুরু হয় নিজেদের মধ্যেই যুদ্ধ। যাতে নিহত হয় ৯০ হাজার মুসলমান।

কিন্তু কেন, কারা, কিভাবে হত্যা করলো তৃতীয় খলিফা উসমানকে ? আর ইসলামের শুরুতেই কেন এমন নৃশংস আর রক্তাক্ত হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হলো ?

উসমান হত্যাকান্ড (৬৪৪-৬৫৬ খ্রি.)

বিশেষ এক নির্বাচনের মাধ্যমে ইসলামের তৃতীয় খলিফা নির্ধারিত হন উসমান ইবনে আফফান। হয়রত উসমান ছিল শান্ত শিষ্ট নরম প্রকৃতির মানুষ। তিনি খলিফাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় ছিলেন। তার ১২ বছরের শাসনামলের শেষ দিকে বিদ্রোহ দানা বাধতে শুরু করে। শেষ পর্যন্ত এই বিদ্রোহ ভয়াবহ মর্মান্তিক ঘটনা মধ্যে দিয়ে শেষ হয়।৮০ বছর বয়সি  উসমানকে হত্যা করা হয় নির্মমভাবে।

হত্যার পর বিদ্রোহীরা তার লাশের সাথে যে নির্মম ব্যবহার করে তা ইসলামের ইতিহাসের সবচেয়ে বর্বরোচিত ঘটনা বলে মনে করা হয়। কারো কারো মতে কারবালার চাইতেও বেশি নিমর্মতা দেখানো হয়েছিল তৃতীয় খলিফার হত্যাকান্ডে।

৪০ দিন অবোরোধ রাখার পর খলিফার বাড়ির দরজায় আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল বিদ্রোহীরা ।  বাড়ির তিনজন নিরাপত্তা রক্ষি নিহত হয়েছিল বিদ্রোহীদের পাথরের আঘাতে।বিদ্রোহীরা শেষ দিকে খলিফার পানি সরবরাহ পর্যন্ত দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছিল।

খলিফা আবু বকরের ছেলে মুহাম্মাদ তিনজন বিদ্রোহীকে নিয়ে  খলিফা উসমানের বাড়িতে প্রথম প্রবেশ করেন । তখন কোরআন পড়ছিলেন বৃদ্ধ খলিফা। ঘরে ঢুকেই মুহাম্মাদ উসমানের দাঁড়ি ধরে টান দেন এবং গালিগালাজ করতে থাকেন।খলিফা মুহাম্মাদকে স্মরণ করিয়ে দেন যে তার বাবা ইসলামের প্রথম খলিফা আবু বকর এই কাজ দেখলে কতটা মর্মাহত হতেন। এতে মুহাম্মদ নিজের ভুল বুঝতে পেরে পিছু হটে যান। 

তখন অন্য বিদ্রোহীরা খলিফার মাথায় তিনটা আঘাত করেন এবং সাথে সাথেই  রক্ত গলগল করে বেয়ে পড়তে থাকে সামনে রাখা কোরআনের পাতায়। এরপর তলোয়ার দিয়ে খলিফাকে কোপ দেয় বিদ্রোহীরা, খলিফা হাত দিয়ে ঠেকাতে গেলে তার হাত কেটে যায়। এসময় উসমান বিদ্রোহীদের বলে ‘এইমাত্র তুমি যে হাতটিকে কেটে ফেললে সেই হাত দিয়েই প্রথম কুরআন লিখা হয়েছিল’ ।

স্ত্রী নাইলা খলিফাকে বাঁচতে এলে তলোয়ারের আঘাতে তার হাতের আঙ্গুলও কেটে যায়। খলিফা তরবারির আঘাতে মাঠিতে যখন লুটিয়ে পড়েন তখন এক বিদ্রোহী তার বুকের উপর দাঁড়িয়ে নয় বার বর্শা ঢুকিয়ে খলিফা উসমানের মৃত্যু নিশ্চিত করে।

যাবার সময় তার বাড়ি লুট করা হয়। এমনকি তার শরীরের কাপড় পর্যন্ত খুলে নিয়ে যায় বিদ্রোহীরা। তবু  বিদ্রোহীদের ক্ষোভ মিটেনি। উসমানকে তিন দিন দাফন না করে আবর্জনার ভাগাড়ে ফেলে রাখা হয়।

অবশেষে মহানবী পত্নী উম্মে হাবিবা মসজিদে নববীতে দাঁড়িয়ে ঘোষনা দেন ‘ যদি উসমানকে সমাহিত করতে না দেওয়া হয় তাহলে তিনি মাথার চুল উন্মুক্ত করে মদিনার রাস্তায় নেমে পড়বেন’। তার এই ঘোষণায় খুব দ্রুত কাজ হয়। বিদ্রোহীরা কিছুটা নমনীয় হন।

আনসারেরা কেউ জানায়া পড়াতে রাজি হননি প্রথমে। পরে উমাইয়া বিন আবি জাবি তার জানায়া পড়ান। তাকে জান্নাতুল বাকিতে দাফন করা হয়। কারো মতে হয়রত আলীর  পরামর্শে গোপনে তাকে দাফন করা হয়।

হযরত উসমান হত্যাকান্ডের সময়  হযরত আলী মদিনাতেই ছিলেন না। নিরপেক্ষতার কথা বলে বাকি সাহাবীরাও ঘরের দরজা বন্ধ করে ছিলেন। অনেকে মনে করেন প্রভাবশালী সাহাবীরা নিরপেক্ষ থাকার কথা বলে দুরে থাকায় বিদ্রোহীরা খলিফাকে হত্যা করার সাহস পেয়েছিল।

কি এত ক্ষোভ ছিল বিদ্রোহীদের ?

প্রশাসনিক দূর্বলতা ছিল উসমানের সবচেয়ে বড় দূর্বলতা। এছাড়া বিভিন্ন প্রদেশে নিজের পরিরারে সদস্যদের বড় বড় পদে বসিয়েছিলেন তিনি। স্বজনপ্রীতির অভিযোগে প্রধানত তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ দানা বাঁধতে শুরু করে ।

এই হত্যাকান্ডের পিছনে আরেকটি ঘটনা নিয়ামক হিসেবে কাজ করে । মুহাম্মদ ইবনে আবু বকরকে মিশরের গভর্নর হিসেবে নিযুক্ত করে পাঠান খলফা উসমান । কিন্তু পথে তারা জানতে পারেন মিশরে পৌঁছামাত্রই মুহাম্মদকে হত্যার আদেশ দিয়ে মিসরের বর্তমান গর্ভনরের কাছে গোপনে চিঠি পাঠিয়েছ খলিফা উসমান ।

এই গোপন চিঠি মুহাম্মাদের হাতে পড়ার পর তারা ক্রোধে উন্মাতাল হয়ে উসমানের কাছে মদিনায় ফিরে আসেন। খলিফা উসমান অস্বীকার করেন এই চিঠির কথা। পরে জানা যায়  উসমানের চাচাতো ভাই গোপনে এই চিঠি লিখে উসমানের সীল লাগিয়ে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন।

মুহাম্মদ ও তার বিদ্রোহী গ্রুপ মারওয়ানকে তাদের হাতে তুলে দিতে বলেন। উসমান রাজি না হওয়ায় তারা উসমানের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু করে। পরে এই বিদ্রোহীরাই হত্যা করে ইসলামের তৃতীয় খলিফাকে।

মুয়াবিয়া সেসময় দামেস্কের শক্তিশালী প্রশাসক ছিলেন। চাইলে তিনি খলিফাকে রক্ষা করতে পারতেন। তিনিও স্বপ্ন দেখছিলেন উসমানের মৃত্যুর পর ইসলামের খলিফা হবেন। তাই ৪০ দিন অবরোধ থাকার পরও কোন প্রদেশ থেকে তাকে রক্ষার জন্য এগিয়ে আসেনি কোন গর্ভনর ।

হয়রত উসমানকে নৃসংসভাবে খুন করার পর মুসলমানদের মধ্যে যে গৃহযুদ্ধ বাধে তাতে ৯০ হাজার মুসলমান মারা যান। এটাই ছিল মুসলমানদের নিজেদের মধ্যে সবচেয়ে বড় নৃশংসতার ঘটনা। ইসলামের যা ‘প্রথম ফিতনা’ নামে পরিচিত ।

ইসলামের এমন এক ভয়াবহ সংকটকালে তৃতীয় খলীফার মৃত্যু পাঁচদিন পর মুসলিম উম্মাহর প্রধান হন আলী ইবনে আবু তালিব।


আরো পড়ুন : খলিফা আলী হত্যাকান্ড কেন এবং কিভাবে?

খলিফা হত্যাকাণ্ড: ইসলামের রক্তাক্ত ইতিহাস

চার খলিফা নির্ধারণ: ইসলামের সংঘাত ও অর্জনের ২৯ বছর !


ভিডিও সৌজন্য : Banglabox

১৬৪ thoughts on “খলিফা উসমান হত্যাকান্ড ও মুসলমানের গৃহযুদ্ধ

  1. Hey there! I understand this is sort of off-topic but I had to ask.
    Does managing a well-established blog like yours take a massive amount work?
    I am brand new to writing a blog however I do write in my journal everyday.
    I’d like to start a blog so I will be able to share my experience
    and views online. Please let me know if you have any recommendations or tips for brand new aspiring blog owners.
    Appreciate it!

  2. Hi there, I found your blog by way of Google at the same time as looking for a related matter,
    your site came up, it looks great. I’ve bookmarked it in my google
    bookmarks.
    Hello there, just turned into aware of your weblog via Google,
    and located that it’s really informative. I am gonna watch
    out for brussels. I will appreciate in case you proceed this in future.
    Lots of other people can be benefited out of your writing.
    Cheers!

  3. What i do not realize is in fact how you are not actually much more neatly-appreciated than you
    might be right now. You are so intelligent. You understand therefore considerably with
    regards to this subject, produced me personally imagine it from numerous numerous angles.
    Its like men and women are not involved unless it’s one thing to do with Woman gaga!
    Your individual stuffs great. At all times deal with it up!

  4. Definitely believe that which you said. Your favorite justification appeared to be on the
    internet the easiest factor to understand of. I say to you, I definitely get annoyed even as folks consider issues that they just do not realize about.
    You managed to hit the nail upon the highest and also defined out
    the whole thing with no need side-effects , other people could take
    a signal. Will probably be back to get more. Thank you

  5. Undeniably imagine that that you said. Your favorite justification appeared to be on the net the simplest
    factor to be mindful of. I say to you, I certainly get irked whilst other folks think about issues
    that they just don’t recognise about. You managed to hit the
    nail upon the top and outlined out the entire thing without having side effect
    , other people could take a signal. Will likely be again to get
    more. Thanks

  6. hey there and thank you for your info – I have definitely picked up something new from right here.
    I did however expertise a few technical issues using
    this web site, as I experienced to reload the website lots of times previous
    to I could get it to load correctly. I had been wondering if your web host is OK?
    Not that I’m complaining, but slow loading instances times will
    sometimes affect your placement in google and can damage your high-quality score if advertising
    and marketing with Adwords. Well I am adding this RSS to my e-mail and can look out for a lot more of
    your respective intriguing content. Make sure you update this again very soon.

  7. Hello there, I found your web site by means of Google
    while looking for a similar subject, your site came up,
    it appears great. I’ve bookmarked it in my google bookmarks.

    Hello there, just turned into alert to your blog via Google, and found that it is really informative.

    I am going to be careful for brussels. I’ll be grateful should you continue this in future.
    Many other folks will probably be benefited out of your writing.
    Cheers!

  8. I don’t know if it’s just me or if perhaps everybody else experiencing issues with your
    website. It looks like some of the text in your
    posts are running off the screen. Can someone else please comment and let
    me know if this is happening to them too? This could be a issue
    with my internet browser because I’ve had this happen previously.
    Many thanks

  9. First off I would like to say fantastic blog! I had a quick question in which I’d like to ask if you do not mind.
    I was curious to know how you center yourself and clear your thoughts before writing.
    I have had a hard time clearing my thoughts in getting my ideas out.

    I truly do take pleasure in writing but it just seems like the
    first 10 to 15 minutes tend to be wasted just trying to figure out how to begin. Any ideas or hints?
    Cheers!

  10. Hi there, I discovered your web site by way of Google while looking for a
    comparable subject, your website got here up, it appears to be
    like good. I’ve bookmarked it in my google bookmarks.

    Hi there, simply was alert to your blog
    via Google, and found that it’s really informative. I’m going to watch out for brussels.
    I’ll appreciate in case you proceed this in future. Lots of people can be benefited out of your writing.
    Cheers!

Leave a Reply

Your email address will not be published.