শিল্পিত পারু’র কবিতা : পিতার সাইকেল

পিতার সাইকেল

শিল্পিত পারু

.

এইখানে বট আর বটের ছায়ায় অনেক বছর আগে

অবিরাম অবিরাম বৃষ্টির পর

তুমি আর তোমার সাইকেল ভিজেছিল খুব!

.

তারপর কাল কত মহাকাল ঘুরে ঘুরে

ভীড় আর মহাভীড়ের ভিতর হারিয়ে ফেলেছি সুর

.

তবু দূর বহুদূর হতে শুনি কার গান

এইখানে মুখ মলিন মুখ আর পাখিদের খু্ঁজি

এ অরণ্য এই জন অরণ্যে পাই না তার ছায়া।

.

এই আকাশ তবু ভরা আকাশে কান পেতে রই

একদিন শুন্যে এই মহাশুন্যে

যদি আবার জেগে ওঠে প্রাণ

.

আনন্দে কি ভীষন আনন্দে যদি আঁছড়ে পড়ে ঢেউ

.

জানি তবু জানি

এই অমোঘের ঘোর কাটবেনা তবু..

.

হঠাৎ একদিন মুখ আবছায়া মুখ আমার জানালায় আসে

আমার মেয়ে প্রথম মেয়ের সাথে খেলে

.

এরপর উড়ে যায় উড়ে উড়ে কোথা যায় দূরে

.

আমার মন গহীণ মন এই ঘর এই বালিশের বুকে

ব্যথা আর অবিরাম ব্যথা নিয়ে পড়ে রয় ধীরে

.

অনেক বছর আগে এইখানে এই অমোঘ নদীর ধারে

তোমার কোটি সন্তানেরা যে গেয়েছিল গান

এইখানে এই ঘন ছায়া আর রোদ মাখা ঘরে

.

তুমি আসো পিতা এসে দেখো

তোমার সন্তান আমার সন্তান এখনও

সুখ আর অসুখের মত চড়ে

তোমার ছড়ানো সাইকেলে !!

.

.

শিল্পিত পারু

২৬ মার্চ, ২০২১ প্রগতিস্মরনী

  
  

৯ thoughts on “শিল্পিত পারু’র কবিতা : পিতার সাইকেল

Leave a Reply

Your email address will not be published.