দেবী দুর্গা এত জনপ্রিয় কেন ?


পারভেজ সেলিম

পারভেজ সেলিম


দুর্গাপূজা বাঙ্গালী হিন্দুদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। বাংলাদেশ, ভারতের কলকাতা, ঝাড়খন্ড, বিহার, ত্রিপুরা এবং নেপালের হিন্দুরা সবচেয়ে আড়ম্বরের সাথে পালন করে এই পূজা কিন্তু পৃথিবীর সকল হিন্দুরা দুর্গাপূজা করেন না। ভারতের মহারাষ্ট্র ও মধ্যপ্রদেশে বেশি পূজো হয় গণেশের। মহাধুমধামে শিবের পূজো হয় ভারতের কিছু রাজ্যে। বর্তমানে রাধা-কৃষ্ণ পূজাও বেড়ে গেছে কিছু হিন্দুদের মাঝে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে দুর্গাপূজা কিভাবে বাঙ্গালী হিন্দুদের মধ্যে এত জনপ্রিয় হয়ে উঠল?

 

হিন্দুদের রয়েছে অসংখ্য দেব দেবী। একজন দেবতার  শক্তিতে তাদের বিশ্বাস নাইদুর্গা হচ্ছে হিন্দুদের এক বড় দেবতা শিব বা মহাদেবের স্ত্রী। তার  ৪ সন্তানদুই ছেলে গনেশ ও কার্তিক আর দুই মেয়ে স্বরস্বতি ও লক্ষীস্বামীর বাড়ী স্বর্গ থেকে প্রতি বছর বাবার বাড়ি পৃথিবীতে আসেন তিনিচারদিন বাবার বাড়ি থেকে আবার স্বামীর বাড়ি মর্ত্যে ফিরে যান প্রতি বছর ভক্তদের কাছে হাতি, নৌকা, পালকি এবং ঘোড়ায় চড়ে অসুরদের বধ করে ফিরে যান স্বর্গে

মন্ডপে মন্ডপে আমরা যা দেখি তা হল দেবী দুর্গা ও তার চার সন্তান এবং তাদের বাহন এছাড়া দুর্গার পায়ের নিচে অসুরকে বধ করার দৃশ্য

মোটা দাগে এই দশদিনের আনন্দ উৎসব আর পূজোই হচ্ছে বাঙ্গালীর শারোদীয় দুর্গোৎসব। অন্য  হিন্দুদের থেকে বাঙ্গালী হিন্দুদের কাছে দুর্গা জনপ্রিয় হবার কিছু কারণ অনুমান করা যায়।

রামায়ণে দূর্গা : 

আজ থেকে ৬০০ বছর আগে সংস্কৃত থেকে রামায়ণ বাংলায় অনুবাদ করেন কৃতিবাস ওঝাতখন তিনি চিরায়ত বাংলায় দেবী দুর্গাকে নিয়ে যে লোককথা প্রচলিত ছিল নিয়ে তা ঢুকিয়ে দিলেনবাংলা রামায়নে দেখা যায় রাবনকে বধ করতে দুর্গার সাহায্য চেয়ে পূজো করে নিয়েছিলেন রাম এবং দেবী দুর্গার সাহায্যেই রাবন বধ করতে সমর্থ হয়েছিলেন রাম

 

রাবণ বধের শক্তির সাথে দুর্গার এই মাতৃরুপ বাঙ্গালী হিন্দুদের মনে দারুণ দাগ কাটে। কারন তখন বাংলায় পরিবাবের মায়ের  ছড়িয়ে আছে সম্মানে আর শাসনে। তবে অন্য সব দেব দেবীকে ছাপিয়ে দুর্গা সাধারন মানুষের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হতে আরো কয়েকশ বছর লেগে যায়।

দূর্গাপুজার পৃষ্ঠপোষকেরা :

দুর্গাপূজোকে সার্বজনীন করে তুলতে ব্রিটিশ, এলিট হিন্দু ও জমিদারদের পৃষ্টপোষকতা বা অবদান সবচেয়ে বেশি। এমন জাঁকজমক করে দুর্গাপূজা প্রথম পালন করতে শুরু করে ব্রিটিশ হিন্দু জমিদাররাই। তাদের খরচে প‍্যান্ডেল ও মন্ডপ সাজানো হত এবং বলা হত এটা সার্বজনীণ দুগোর্ৎসব, যেখানে সবাই অংশগ্রহণ করতে পারবে। ব্রিটিশরাও তাদের শাসনকে পাকাপোক্ত করার জন্য ভারতে হিন্দুদের এমন একটি সার্বজনীন উৎসব চাচ্ছিল যাতে সাধরণ নিম্নবিত্তের মানুষ অংশগ্রহন করতে পারেন। দরিদ্র হিন্দুদের একসময় যেখানে পূজো করারই অধিকার ছিলনা এখন সেটা ঘুচে গেল। মন্ডপে মন্ডপে মানুষের ঢল নামতে শুরু করলো।

 

আর সময়টা শরৎকালকে বেছে নেয়ার কারণ হলো রাম যখন রাবন বধ করার জন্য দূর্গার পুজো শুরু করে সেটা ছিল এই শরৎকাল। তবে এই সময় পূজো হবার অন্য একটা কারনও ছিল, এসময় বৃষ্টি কম হত আর নবান্নের কারণে আর্থিক অবস্থা ভালো থাকায় মানুষ আনন্দ করতে পারতো। চৈত্রমাসেও এই দুর্গাপুজো হয় তাকে বাসন্তী পূজো বলে। যদিও বাংলা আশ্বিন মাসের এই শারদীয় দুর্গাপূজাই হিন্দুদের সবচেয়ে জনপ্রিয় উৎসব ।

প্রথম দুর্গোউৎসব :

প্রাচীনকাল থেকে এদেশে বিভিন্ন দেব দেবীর পূজো করলেও  দুর্গাপূজা প্রচলণ শুরু হয় ১৫০০ সালের দিকে। বাংলাদেশের রাজশাহীর তাহেরপুরের জমিদার রাজা কংস নারায়ণ প্রথম শারদীয় দুর্গাপূজার প্রচলণ করেন বলে ধারণা করা হয়অন্য আরেকটি মতে, ভারতে নদীয়ার ভাষানন্দ মজুমদার এই পূজো শুরু করেন বলে জানা যায়

 

১৭৫৭ সালে পলাশী যুদ্ধ জয়ের পর লর্ড ক্লাইভকে খুশি করতে ব্রিটিশদের সহযোগী রাজা নবকৃষ্ণ দেব তার কলকাতার বাড়িতে দুর্গাপূজার আয়োজন করেছিলসেই পূজোয় লর্ড ক্লাইভও উপস্থিত ছিল বলে জানা যায়। এই শোভাবাজার রাজবাড়ির দুর্গাপূজোই এখন পর্যন্ত সবচেয়ে পুরাতন দুর্গোউৎসব। ২২৯ বছর হতে চলল এই পূজোর বয়স ।

তবে দুর্গাপূজা জমিদার বা বাবু ঘরনার বাহিরে বেরিয়ে এসে সার্বজনীন হয় ওঠে ১৯১০ সালে। সনাতনী ধর্মোতসাহিনী সভার আয়োজনে কলকাতার বাগবাজারে প্রথম সাধারন মানুষের জন্য  সার্বজনীন দুর্গোৎসব শুরু হয়। আর এখন ধীরে ধীরে হিন্দু ছাড়াও বাঙ্গালী সকল সম্প্রদায়ের কাছে দুর্গাপুজা একটি সার্বজনীন উৎসবে পরিনত হয়েছে।





পারভেজ সেলিম
লেখক ও চলচ্চিত্রকর্মী


ভিডিও সৌজন্য : Banglabox

৬৩ thoughts on “দেবী দুর্গা এত জনপ্রিয় কেন ?

  1. An outstanding share! I have just forwarded this onto a coworker who has been conducting a little research on this.
    And he in fact bought me breakfast simply because I found it for him…
    lol. So let me reword this…. Thank YOU for the meal!!
    But yeah, thanks for spending the time to discuss
    this matter here on your web page.

  2. Today, I went to the beachfront with my children. I found a sea shell
    and gave it to my 4 year old daughter and said “You can hear the ocean if you put this to your ear.” She placed the shell to her ear and screamed.

    There was a hermit crab inside and it pinched her ear.
    She never wants to go back! LoL I know this is entirely off topic but I
    had to tell someone!

  3. Greetings I am so thrilled I found your website, I really found you
    by accident, while I was browsing on Askjeeve for something else,
    Anyhow I am here now and would just like to say kudos for a
    remarkable post and a all round interesting blog (I also love the theme/design), I don’t have time to read through it all at the moment but I have book-marked it and also added in your
    RSS feeds, so when I have time I will be back to read a lot more, Please do keep
    up the superb work.

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x